অপ্রয়োজনীয় ‘এসএমএস’ যন্ত্রণা থেকে মুক্তি মিলবে যেভাবে

রাত-বিরেতে, সময়ে-অসময়ে কিংবা কাজের ব্যাস্ততায় প্রোমোশনাল অনেক ক্ষুদে বার্তা বিরক্তির জন্ম দেয়। এমন অপ্রয়োজনীয় মোবাইলে এসএমএস বন্ধ করতে রাষ্ট্রায়ত্ব টেলিটক ছাড়া বেসরকারি সব কটি অপারেটরেই চালু আছে ‘এসএমএস ব্লক’ সেবা। এই সেবাটি গ্রহণ করেই মুক্তি পেতে পারেন অপ্রোয়জনীয় এসএমএস যন্ত্রণা থেকে।

গ্রামীণফোন : দেশের সবচেয়ে বড় মোবাইল অপারেটর গ্রামীণফোনের প্রোমোশনাল এসএমএস বন্ধ করতে ডায়াল করতে হবে *121*1101# নম্বরে।
প্রয়োজনে আবার  *121*1102# নম্বরে ডায়াল করে চালু করা যাবে এই সেবা।

রবি : অপ্রোয়জনীয় ও বিরক্তিকর এসএমএস বন্ধ করতে রবি গ্রাহকদের ১২৩ নম্বরে ফোন দিয়ে ডিএনডি (ডু নট ডিস্টার্ব) সেবা চালুর জন্য অনুরোধ করতে হবে। এজন্য ফোন করে এই ধরনের এসএমএস বন্ধ করার অনুরোধ করলেই সংশ্লিষ্টরা ফোনদাতাকে নিয়ে যাবে ডিএনডি বিভাগে। সেখান থেকেই বন্ধ করা যাবে প্রোমোশনাল এসএমএস আসা। একইভাবে এই সেবা ব্যবহার করতে পারবেন রবির অধিভূক্ত মোবাইল অপারেটর এয়ারটেলের গ্রাহকরা।

বাংলালিংক : প্রোমশনাল এসএমএস না চাইলে মেসেজ অপশনে গিয়ে অফ (OFF) লিখে ৬১২১ নম্বরে এসএমএস পাঠিয়ে দিলেই নিস্তার পাবেন বাংলালিংক গ্রাহকরা।

অবশ্য এরপরেও যদি এসএমএস আসা বন্ধ না হয় তবে ২০১৫ সালের মে মাসে জারি হওয়া ‘ডিরেক্টিভস অন সার্ভিস অ্যান্ড ট্যারিফ’ এর অধীনে নিয়ন্ত্রক কমিশনে অভিযোগ করতে পারবেন সংক্ষুব্ধ মোবাইল ব্যবহারকারী। এজন্য বিআরসির ওয়েবসাইটের (http://www.btrc.gov.bd/complain-management) লিংকে গিয়ে অভিযোগ করতে হবে এছাড়া বিটিআরসির শর্টকোড ২৮৭২ নম্বরে অফিস সময়ে ফোন করেও অভিযোগ জানানো যাবে।

এছাড়াও বিটিআরসির ওয়েবসাইটে ই-মেইল ঠিকানা দেওয়া আছে, অভিযোগ বক্সও রয়েছে। সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি সেখানে অভিযোগ পাঠালে কমিশনের যে ‘কমপ্লেইন ম্যানেজমেন্ট টিম’ আছে তারা তা যাচাই-বাছাই করে গ্রাহকের পক্ষে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করে থাকেন।’