চীনে ডিজিটাল আদালতে চ্যাটবটে রায়

কৃত্রিম-বুদ্ধিমত্তার বিচারক, সাইবার-আদালত এবং চ্যাট অ্যাপের মাধ্যমে মামলার রায় দেতে ডিজিটাল বিচার ব্যবস্থায় যাত্রা শুরু করছে চীন। চলতি সপ্তাহে দেশটির হাংঝাউ ইন্টারনেট আদালতে এই বিচার কার্যক্রম শুরু হয়। আর এই আদালতকে দেশটির জন্য একটি সাহসী উদ্যোগ হিসেবে খবর প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমগুলো।

বার্তাসংস্থা এএফপি’র খবরে জানাগেছে, সাইবারস্পেস এবং ব্লকচেইন এবং ক্লাউড কম্পিউটিংয়ের মতো প্রযুক্তি ব্যবহার করে বিচারিক কার্যক্রম পরিচালনায় ইতিমধ্যেই একটি নীতিমালা তৈরি করেছে চীনের সুপ্রিম পিপলস কোর্ট। আদালতের কেস-হ্যান্ডলিংকে ডিজিটাল রূপান্তর নিশ্চিত করতেই এই নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়।

সেই ধারাবাহিকতায় দেশটির নিজস্ব সামাজিকে যোগাযোগ মাধ্য ‘উইচ্যাট’ এ গত মার্চ থেকে”ভ্রাম্যমাণ আদালত” এর অধীনে এই বিচারিক প্রক্রিয়া শুরু হয়। এই পদ্ধতিতে ইতিমধ্যেই ৩০ লাখ মামলা বা অন্যান্য বিচার প্রক্রিয়া ইতোমধ্যে নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে।

মূলতঃ ২০১৭ সালে দেশটির পূবাঞ্চলীয় শহর হাংঝু-তে এই “সাইবার কোর্ট” স্থাপন করা হয়। আর এই সপ্তাহে এই আদালতে রায়ের কপি প্রকাশ করা হলো। এতে একটি বিক্ষোভ সমাবেশে কর্তৃপক্ষ দেখিয়েছে যে হাংঝাউ ইন্টারনেট আদালত কিভাবে পরিচালনা করে, একটি অনলাইন ইন্টারফেস সমন্বিত যেখানে ভিডিও চ্যাটের মাধ্যমে একটি এআই বিচারক হিসেবে উপস্থিত থাকে ডিজিটাল পর্দায় তাদের মামলা উপস্থাপন করার জন্য পেশ করে।